ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

কোরবানির চামড়া ক্রয়

গতবারের চেয়ে এবার বেশি টাকা দিচ্ছে ব্যাংক

২০১৯ আগস্ট ০৭ ০৯:২৫:৫৪

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়া কিনতে গতবারের চেয়ে এবার বেশি টাকা দিচ্ছে ব্যাংক। আগের ঋণ নবায়নসহ এবার প্রায় এক হাজার ৭৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক সোনালী, অগ্রণী, জনতা ও রূপালী।

এর বাইরে বেসরকারি খাতের উত্তরা, ন্যাশনালসহ আরও কয়েকটি ব্যাংক চামড়া খাতে ঋণ দিচ্ছে। তবে এর পরিমাণ জানা যায়নি। গত বছরে ব্যাংকগুলো ব্যবসায়ীদের কাঁচা চামড়া কিনতে ৬০১ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছিল।

ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীরা জানিয়েছেন, যারা গত বছরের ঋণের টাকা ফেরত দিয়েছেন, কেবল তাদেরই ঋণ দেওয়া হয়েছে। গত বছরের মতো এবারও প্রতিষ্ঠিত ট্যানারির মালিকরা ঋণ পাচ্ছেন। নতুন-পুরনো প্রায় ২৪টি প্রতিষ্ঠান এ ঋণ পাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম বলেছেন, চামড়া ব্যবসায়ীদের সুদিন আসছে। সাভারে চামড়া শিল্প নগরীতে সিইটিপি (কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার) চালু হতে যাচ্ছে।

এ কারণে অগ্রণী ব্যাংক এবছর কাঁচা চামড়া কিনতে গতবারের চেয়ে বেশি টাকা দিচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, এবছর ব্যবসায়ীরা ১৩০ কোটি টাকা ঋণ পাবে। গত বছর কাঁচা চামড়া কিনতে ১০৫ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছিল অগ্রণী ব্যাংক।

বেসিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আলম বলেন, আমাদের ব্যাংকে চামড়া কেনার একজন গ্রাহক। তিনি আগের নেওয়া টাকা ফেরত দিতে পারেননি, এ কারণে আমরা এবছর নতুন করে কাঁচা চামড়া কিনতে কোনও ঋণ দিচ্ছি না।

এদিকে এবারের কোরবানির পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ হয়েছে। মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) সচিবালয়ের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি নির্ধারিত দাম ঘোষণা করেন। চামড়া ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে এই দাম নির্ধারণ করা হয়।

এ সময় মন্ত্রী জানান, এবার গরুর চামড়ার দাম ঢাকায় প্রতি বর্গফুট হবে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। ঢাকার বাইরে ৩৫-৪০ টাকা। খাসির চামড়ার দাম হবে সারা দেশে ১৮-২০ টাকা। বকরির চামড়ার দাম ১৩-১৫ টাকা।

এবার পশুর চামড়া কিনতে সবচেয়ে বেশি ঋণ দিচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা ব্যাংক। ব্যাংকটি আগের ঋণ নবায়নসহ প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকার ঋণ দিচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুছ ছালাম আজাদ বলেন, এবার কাঁচা চামড়া কিনতে নতুনভাবে ২০০ কোটি টাকার ঋণ দেওয়া হবে।

এ ছাড়া ঋণ নবায়ন হবে আরও এক হাজার ১০০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে এক হাজার ৩০০ কোটি টাকার ঋণ দেওয়া হবে। নতুন-পুরনো ১০টি প্রতিষ্ঠানকে এই ঋণ দেওয়া হচ্ছে।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে রূপালী ব্যাংক। চারটি প্রতিষ্ঠানকে এই ঋণ দেওয়া হচ্ছে। রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আতাউর রহমান প্রধান জানান, গতবার পশুর চামড়া কিনতে ১৭৫ কোটি টাকার মতো ঋণ দিয়েছিল রূপালী ব্যাংক।

এবার চামড়া খাতে ২৫০ কোটি টাকার মতো ঋণ দেওয়া হবে। সোনালী ব্যাংক গতবারের মতো এবারও তিনটি প্রতিষ্ঠানকে ৭০ কোটি টাকার ঋণ দিচ্ছে।

জানা যায়, ঈদুল আজহায় আড়তদারদের মাধ্যমে প্রচুর চামড়া সংগ্রহ করেন ট্যানারি মালিকরা। ফলে তাদের বাড়তি অর্থের প্রয়োজন হয়। তাদের এ চাহিদা পূরণ করে ব্যাংকগুলো।

বিজনেস আওয়ার/০৭ আগস্ট, ২০১৯/এ

উপরে