ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬


রাইটে অর্থ উত্তোলনের পরে মুনাফা কমছে ডেল্টা স্পিনার্সের

২০১৯ আগস্ট ২৮ ১১:৩৫:৪৫

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক :ব্যবসা সম্প্রসারনের লক্ষ্যে রাইট শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ উত্তোলন করলেও ধারাবাহিকভাবে মুনাফা কমছে ডেল্টা স্পিনার্সের। কোম্পানির এমন শোচণীয় অবস্থায় উদ্যোক্তা/পরিচালকেরা তাদের শেয়ার বিক্রি করে মালিকানা অর্ধেকে নামিয়ে এনেছেন।

কোম্পানিটির পক্ষে ২০১৪ সালে ১টি সাধারন শেয়ারের বিপরীতে ২টি রাইট শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ৯১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হয়। এজন্য ওই বছরের ৫ আগস্ট থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত শুধুমাত্র অভিহিত মূল্যে চাদাঁ সংগ্রহ করে। ব্যবসা সম্প্রসারনে ৭২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ও ১৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকার ঋণ পরিশোধের লক্ষ্যে এই অর্থ সংগ্রহ করা হয়।

দেখা গেছে, রাইটে অর্থ সংগ্রহের ২০১৪-১৫ অর্থবছরে কোম্পানিটির মুনাফা হয়েছিল ৭ কোটি ২১ লাখ টাকা। এরপরের বছরগুলোতে রাইটের অর্থ ব্যবহারের ফলে মুনাফা ধারাবাহিক উত্থানের পরিবর্তে কমেছে। রাইট সংগ্রহের পরের অর্থবছরেই (২০১৫-১৬) মুনাফা কমে আসে ৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকায়। যা এরপরের ২০১৬-১৭ অর্থবছরে কমে আসে ৪ কোটি ৩৭ লাখ টাকায়। এরপরে ২০১৭-১৮ অর্থবছর অনেক আগে পার হয়ে গেলেও সেই অর্থবছরেরসম্পূর্ণ মুনাফার তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। ওই অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই ১৭- মার্চ ১৮) কোম্পানিটির মুনাফা হয় ২ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ৯ মাসে (জুলাই ১৮- মার্চ ১৯) মুনাফা হয়েছে ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

ডেল্টা স্পিনার্সের সচিব মাসুদুর রহমান বিজনেস আওয়ারকে বলেন, মুনাফা কমে যাওয়ার অনেক কিছু আছে। তবে সেগুলো নিয়ে কথা বলা যাবে না। আমরা সবকিছু আর্থিক প্রতিবেদনে তুলে ধরি। সেখানেই পাওয়া যাবে। কিন্তু ২০১৭-১৮ অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদনতো প্রকাশ হয়নি এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, সেটা ঠিক আছে। তাহলে ওই বছরের বিস্তারিত পাওয়া যাবে না। তারপরেও এখন অনেক কড়াকড়ি চলছে। কিছু বললেই মূল্য সংবেদনশীল তথ্য (পিএসআই) হয়ে যায়। তাই কিছু বলা ঠিক হবে না।

রাইটে বিপুল অর্থ সংগ্রহের পরে কোম্পানিটির পর্ষদ বোনাস শেয়ার দেওয়া শুরু করে। রাইটের আগে নগদ লভ্যাংশ দিলেও ২০১৫-১৬ অর্থবছর ও ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১০ শতাংশ করে বোনাস শেয়ার দেয়। আর নির্ধারিত সময় পার হয়ে গেলেও ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ব্যবসা নিয়ে এখনো লভ্যাংশ ঘোষণা করেনি। এছাড়া ওই অর্থবছরের জন্য বার্ষিক সাধারন সভাও (এজিএম) অনুষ্ঠিত হয়নি। যে কারনে কোম্পানিটি সর্বনিম্ন ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে পতিত হয়েছে।

১৯৯৫ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া ডেল্টা স্পিনার্স ২০১০ ও ১৯৯৬ সালে রাইট শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করে। ওই ২ বছরই ১টি সাধারন শেয়ারের বিপরীতে ১টি করে রাইট শেয়ার ইস্যু করেছিল। প্রতিবারই অভিহিত মূল্যে রাইট শেয়ার ইস্যু করা হয়।

২০১৪ সালে রাইট ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের সময় ডেল্টা স্পিনার্সের উদ্যোক্তা/পরিচালকদের ৩৩ শতাংশ মালিকানা ছিল। এখন সেটা নেমে এসেছে মাত্র ১৮ শতাংশে। ব্যবসায় দুরাবস্থার সঙ্গে সঙ্গে উদ্যোক্তা/পরিচালকেরা কোম্পানিটি থেকে নিজেদেরকে সড়িয়ে নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) লেনদেন শেষে ডেল্টা স্পিনার্সের শেয়ার দর দাড়িঁয়েছে ৫.৬০ টাকায়।

বিজনেস আওয়ার/২৮ আগস্ট, ২০১৯/আরএ

উপরে