ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬


আগস্টে রফতানি আয় কমেছে

২০১৯ সেপ্টেম্বর ০৯ ১৩:৩৪:২৫

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : আগস্ট মাসে পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ আয় করেছে ২৮৪ কোটি ৪৩ লাখ ডলার। যা গতবছরের একই মাসের তুলনায় সাড়ে ১১ শতাংশ কম। গতবছর আগস্টে বাংলাদেশ ৩২১ কোটি ৩৫ লাখ ডলারের পণ্য রফতানি করেছিল।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) হালনাগাদ প্রতিবেদনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। রবিবার (৮ সেপ্টেম্বর) এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

আগস্টে ৩৮৫ কোটি ৮০ লাখ ডলারের পণ্য রফতানির লক্ষ্য ঠিক করেছিল বাংলাদেশ। এই হিসেবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৬ দশমিক ২৭ শতাংশ কম আয় হয়েছে।

ইপিবি’র তথ্য বলছে, অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ ৩৮৮ কোটি ৭৮ লাখ ডলার আয় করে। গতবছর জুলাইয়ে এ খাতে আয় হয়েছিল ৩৫৮ কোটি ১৪ লাখ ডলার। জুলাই মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল সাড়ে ৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-অগাস্ট) পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ আয় করেছে ৬৭৩ কোটি ২২ লাখ ডলার। এই অংক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে শূণ্য দশমিক ৯২ শতাংশ কম।

যদিও এবার জুলাই-আগস্টের রফতানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬৭৯ কোটি ৫০ লাখ ডলার। গত বছর জুলাই-আগস্টে ৬৭৯ কোটি ৫০ লাখ ডলারের পণ্য রফতানি করেছিল বাংলাদেশ।

ইপিবির তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, জুলাই-আগস্টে মোট রফতানি আয়ের ৮৪ দশমিক ৯১ শতাংশই এসেছে তৈরি পোশাক খাত থেকে। ৬৭৩ কোটি ২২ লাখ ডলার রফতানি আয়ের মধ্যে ৫৭১ কোটি ৬৫ লাখ ডলারের যোগান দিয়েছে তৈরি পোশাক খাত।

তবে এ খাতে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে আয় কমেছে দশমিক ৩৩ শতাংশ। জুলাই-আগস্টে পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি কমেছে শূণ্য দশমিক ৪৩ শতাংশ।

হিমায়িত মাছ রফতানি কমেছে ৫ শতাংশ। চা রফতানি কমেছে ১৮ দশমিক ১৮ শতাংশ। তবে চামড়া এবং চামড়াজাত পণ্য রফতানি বেড়েছে ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

স্পেশালাইজড টেক্সটাইল রফতানি বেড়েছে ৫ শতাংশ। ওষুধ রফতানি বেড়েছে ২২ দশমিক ১১ শতাংশ। তামাক রফতানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ। হ্যান্ডিক্যাফট রফতানি বেড়েছে ১২ শতাংশ।

উল্লেখ্য, ২০১৯-২০ অর্থবছরে পণ্য রফতানির আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৫৫০ কোটি ডলার। অবশ্য গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ ৪ হাজার ৫৩৫ কোটি ৮২ লাখ ডলার আয় করে।

বিজনেস আওয়ার/০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এ

উপরে