ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬


'কাশ্মীরের জন্য দায়ী নেহেরু'

২০১৯ সেপ্টেম্বর ২৩ ১২:১৮:২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের জন্য জওহরলাল নেহেরুকে দায়ী করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। আগামী মাসে মহারাষ্ট্রে বিধানসভা অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষ্যে মুম্বাইয়ে এক সভায় সংবিধানের ৩৭০ ধারা নিয়ে কথা বলেন তিনি।

অমিত শাহ'র দাবি, ১৯৪৭ সালে ‘অসময়ে যুদ্ধবিরতি’র জন্য এমনটা হয়েছে। দেশের প্রথম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে পারতেন।

পাকিস্তানের সঙ্গে যদি নেহেরু অসময়ে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা না করতেন, তাহলে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের অস্তিত্ব থাকতো না। কাশ্মীর সামলাতে পারতেন সর্দার প্যাটেল...রাজাদের অধীনে থাকা রাজ্যগুলো সামলেছেন সর্দার প্যাটেল এবং সেগুলো ভারতের অংশ হয়েছে।

আগস্টে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা বা ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে ভারত। পাশাপাশি রাজ্যটিকে ভেঙে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হয়। তারপর থেকেই সেখানে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ রাখা হয় এবং কোনোরকম ঘটনা এড়াতে রাজনৈতিক নেতাদের গৃহবন্দি করে রাখা হয়।

সংবিধানের ৩৭০ ধারা নিয়ে বিজেপির অবস্থান ব্যাখা করতে গিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারে রাজনীতি দেখছে কংগ্রেস, আমরা এভাবে দেখি না...আমাদের কাছে, এটা জাতীয়তাবাদের বিষয়।

তিনি বলেন, এক দেশ, এক প্রধানমন্ত্রী, এক সংবিধান’ নীতিতে বিশ্বাস করে তার দল। জওহরলাল নেহেরু জম্মু ও কাশ্মীরে বিশেষ মর্যাদা দিয়েছিলেন এবং তার পর থেকেই উপত্যকায় সন্ত্রাসবাদ বাড়তে থাকে।

তার কথায়, ৪০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে এবং কাশ্মীরী পণ্ডিত, সুফি, এবং শিখদের ১৯৯০ থেকে ২০০০ –এই ১০ বছরে তাড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

অমিত শাহ আরও বলেন, রাহুল গান্ধী ৩৭০ ধারাকে রাজনৈতিক ইস্যু বলছেন। রাহুল বাবা, আপনি এখন রাজনীতিতে এসেছেন, কিন্তু ৩৭০ ধারা বিলুপ্তির জন্য। আমাদের কাছে এটা রাজনৈতিক ইস্যু নয়। ভারতকে অখণ্ড রাখতে এটা আমাদের লক্ষ্য।

বিজনেস আওয়ার/২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এ

উপরে