sristymultimedia.com

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬


বুয়েটে কাল থেকে ফের আন্দোলন

১২:০০পিএম, ১৪ অক্টোবর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : আবরার ফাহাদ হত্যার বিচারের দাবিতে মঙ্গলবার (১৪ অক্টোবর) থেকে ফের আন্দোলনে নামছে (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা। ১০ দফা দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছে তারা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, ১০ দফা দাবি বাস্তবায়ন এখনো শেষ হয়নি। আবরার হত্যার বিচার না পাওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরবো না। মঙ্গলবার আগের মতোই মিছিল, সমাবেশ ও স্লোগানের মধ্য দিয়ে দাবি আদায়ের কর্মসূচি পালন করা হবে।

শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের দাবি বাস্তবায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে। তার মানে এই নয় দাবি বাস্তবায়িত হয়েছে। দাবি বাস্তবায়ন হলেই আমরা আন্দোলন তুলে নেব।

এ বিষয়ে বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা বিভিন্নভাবে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। আমরা তাদের দাবিগুলো মেনে নিয়েছি, সেক্ষেত্রে আমরা যথেষ্ট আন্তরিক। আমি রাজনীতিবিদ নই, তাই রাজনীতি বন্ধ করা আমার জন্য কঠিন কাজ।

তারপরও তাদের দাবি মেনে আমি ক্যাম্পাসে রাজনীতি বন্ধ করেছি। আমি গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি, তিনি আমাকে সহযোগীতার পূর্ণ আশ্বাস দিয়েছেন। আমরাও আন্তরিক, সরকারও আন্তরিক সেটা শিক্ষার্থীরাও বুঝতে পেরেছে।

একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনায় শিক্ষার্থীদের সহায়তা করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা যে আন্তরিক শিক্ষার্থীরা সেটি বুঝতে পেরেছে সেজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই। আমরা যতদ্রুত সম্ভব এটি সমাধানের চেষ্টা করব।

একদিনে তো অনেকদিনের সমস্যা সমাধান করা সম্ভব না। আমি বলছি যতবার প্রয়োজন তাদের সঙ্গে বসব। তাদের সমস্যাগুলো একে একে সমাধান করব। কারণ আমাদের একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করতে হবে। আমি তাদের সহযোগিতা চাই।

তবে সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, দাবি আদায়ে বিভিন্ন সময় আন্দোলন করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ সেসব দাবি মেনে নেওয়ার ঘোষণা দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। এ কারণে শিক্ষার্থীরা প্রশাসনের উপর আস্থা হারিয়েছে। প্রশাসনের উচিত আগে শিক্ষার্থীদের আস্থা অর্জন করা।

ছাত্ররাজনীতি বন্ধের ব্যাপারে তারা বলেন, বুয়েটে অধিকার আদায়ে সাতটি হলে সাতজন প্রতিনিধি রয়েছে। সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠন তা দখল করে রেখেছে। প্রতিটি হলে নির্বাচনের মাধ্যমে হল প্রতিনিধি নির্বাচিত করতে পারবো। যারা ছাত্রছাত্রীর অধিকার সংরক্ষণে কাজ করবেন।

এর আগে শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে গত শনিবার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বুয়েট প্রশাসন। দাবিগুলো হলো আবরারের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা, মামলায় অভিযুক্ত ১৯ জন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার, ছাত্ররাজনীতি বন্ধ ও অছাত্রদেরকে হল থেকে বের করা, ছাত্র নির্যাতন প্রতিরোধে অনলাইন প্লাটফর্ম তৈরি এবং হলের চতুর্দিকে সিসিটিভি সংযোজন।

পরে দুপুরে বুয়েট ক্যাম্পাস ক্যাফেটেরিয়ার সামনে আলোচনা করে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ১৩ ও ১৪ অক্টোবর আন্দোলন শিথিলের সিদ্ধান্ত নেয় আন্দোলনকারীরা।

এ সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা যথা সময়েই অনুষ্ঠিত হবে। আবরার হত্যার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের জন্য যে উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছিল ভর্তি পরীক্ষার কারণে সেই আন্দোলন শিথিল করা হলো।

উল্লেখ্য, গত ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী।

বিজনেস আওয়ার/১৪ অক্টোবর, ২০১৯/এ

উপরে