করোনাভাইরাস লাইভ আপডেট
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
৬১
২৬
সূত্র:আইইডিসিআর
বিশ্বজুড়ে
দেশ
আক্রান্ত
মৃত্যু
১৮১
১০৬৬৭০৬
৫৬৭৬৭
সূত্র: জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও অন্যান্য।

ঢাকা, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬


সোয়া চার কোটি শিক্ষার্থী পাচ্ছে নতুন বই

১২:০১পিএম, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : বিনা মূল্যে বিতরণের জন্য প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সোয়া চার কোটি শিক্ষার্থীর জন্য ৩৫ কোটি সাড়ে ৩১ লাখ বই ছাপার কাজ শেষ করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো প্রকৃত চাহিদার চেয়ে বেশি চাহিদা দেওয়ায় এবার অবশ্য বই বেশি ছাপতে হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বিনা মূল্যে বই দিতে এ বছর সরকারের খরচ হয়েছে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, ২০১০ সাল থেকে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সব শিক্ষার্থীকে বিনা মূল্যে নতুন পাঠ্যবই দেওয়া শুরু করে সরকার। এরপর ধারাবাহিকভাবে শিক্ষার্থীদের বছরের শুরুতে উৎসব করে বিনা মূল্যে বই দেওয়া হচ্ছে। আগামী ২০২০ শিক্ষাবর্ষেও বছরের প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হবে নতুন বই। ইতোমধ্যে সব বই উপজেলায় পাঠানো হয়েছে। আর ১ জানুয়ারি উৎসব করে সারা দেশে বই দেওয়া হবে।

এনসিটিবি সুত্রে জানা গেছে, এবার বই উৎসবের মূল আয়োজনটি রাজধানীর বাইরে সাভারের অধর চন্দ্র উচ্চবিদ্যালয়ে হবে বলে জানান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. সোহরাব হোসাইন। অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, তাঁদের মূল অনুষ্ঠান আগের মতোই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হবে।

মাঠপর্যায়ে বই পাঠানোর পর সেগুলোর মান ঠিক আছে কি না এবং চাহিদা অনুযায়ী সব বই গেছে কি না, তা দেখার জন্য এনসিটিবি বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় পৃথক পরিদর্শক দল পাঠিয়েছে।

এ ব্যাপারে এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, নতুন বইয়ের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ১৫ থেকে ২০ শতাংশ পর্যন্ত অতিরিক্ত চাহিদা পাঠায়। এটা বন্ধে আগামী বছর থেকে আলাদা সফটওয়্যার তৈরি করে অনলাইনে চাহিদা নিয়ে আগেই যাচাই করা হবে। এ ছাড়া মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরকেও বলা হয়েছে, তারা যেন একটি আদেশ জারি করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে জানিয়ে দেয়, প্রকৃত চাহিদার চেয়ে বেশি দিলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এনসিটিবির একজন কর্মকর্তা বলেন, পরিদর্শনের সময়ও দেখা যাচ্ছে, অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রকৃত চাহিদার চেয়ে অতিরিক্ত বই চাচ্ছে। পাবনার ঈশ্বরদী ও নাটোর পরিদর্শন শেষে পরিদর্শক দল এনসিটিবিতে যে প্রতিবেদন দিয়েছে, তাতে অতিরিক্ত চাহিদা দেওয়ার তথ্য রয়েছে।

বিজনেস আওয়ার/২৮ ডিসেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবি
শাহবাগে ফের বিক্ষোভ, কঠোর কর্মসূচীর হুঁশিয়ারি

উপরে