ঢাকা, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬


পদ্মাসেতুতে যুক্ত হলো আরও একটি স্প্যান

১২:০২পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : পদ্মাসেতুর ২২তম স্প্যান বসেছে আজ। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সেতুর ৫ ও ৬ নম্বর পিলারের উপর বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হলো ৩.৩ কিলোমিটার। দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় সফলভাবেই স্প্যানটি বসানো সম্ভব হয়েছে।

একের পর এক স্প্যান বসিয়ে নির্মাণ হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মাসেতু। আর ১৯টি স্প্যান বসিয়ে ২.৮৫ কিলোমিটার বাকি সেতুতে। ঢাকা ও আশপাশের অঞ্চল থেকে পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে যাওয়ার এ স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নেবে আর ১৯টি স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে।

আজ সকাল পৌনে ৯টায় ধূসর রঙের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে 'তিয়ান ই' ভাসমান ক্রেন বহন করে রওনা দেয়। সেতুর ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের কাছে পৌঁছায় সকাল সোয়া ৯টার দিকে।

প্রকৌশলীরা জানান, পদ্মাসেতুতে বর্তমানে স্প্যান আছে ৩৫টি। এর মধ্যে ২১টি স্প্যান পিলারের উপর সংযুক্ত করা হয়েছে। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া কুমারভোগ কন্সট্রাকশন ইয়ার্ডে আছে স্প্যান আছে ১৪টি। চারটি স্প্যান সমুদ্র পথে আছে মাওয়ায় আসার জন্য।

বাকি দুইটি স্প্যান চীনে আছে। চলতি মাসের ৩০ ও ৩১ তারিখ ২৩ তম স্প্যানটি সেতুর ৩১ ও ৩২ নম্বর পিলারের উপর বসানোর পরিকল্পনা আছে। সেতুর ৪২টি পিলারের মধ্যে ৩৬পিলারের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি ছয়টি পিলারের কাজ শেষ হতে পারে এপ্রিল মাসে।

উল্লেখ্য, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুতে দুই হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে ২ হাজার ৯৫৯টি। পদ্মাসেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো কর্পোরেশন।

বিজনেস আওয়ার/২৩ জানুয়ারি, ২০২০/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে