করোনাভাইরাস লাইভ আপডেট
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
৫৬
২৬
সূত্র:আইইডিসিআর
বিশ্বজুড়ে
দেশ
আক্রান্ত
মৃত্যু
১৮০
৯৮১২২১
৫০২৩০
সূত্র: জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও অন্যান্য।

ঢাকা, শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬


হুমায়ুন ফরীদির চলে যাওয়ার আট বছর আজ

০১:৫৬পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বিনোদন ডেস্ক : শক্তিমান অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদির চলে যাওয়ার আট বছর আজ। ২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রয়াত হন শক্তিমান এ অভিনেতা। কিংবদন্তি এ অভিনেতার মৃত্যুদিনে শিল্প-সংস্কৃতি ও সাহিত্যাঙ্গনের অনেকেই তাকে শ্র্রদ্ধাভরে স্মরণ করছেন। চলে যাওয়ার ৮ বছর পরও শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গনের মানুষ ও ভক্ত-অনুরাগীদের চেতনায় চির উজ্জ্বল-অম্লান তিনি।

১৯৫২ সালের ২৯ মে ঢাকার নারিন্দায় জন্মগ্রহণ করেন হুমায়ুন ফরীদি। তার বাবার নাম এটিএম নুরুল ইসলাম, মায়ের নাম বেগম ফরীদা ইসলাম। চার ভাই-বোনের মধ্যে ফরীদি ছিলেন দ্বিতীয়। ১৯৭০ সালে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দেন চাঁদপুর সরকারি কলেজ থেকে। একই বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্গানিক কেমিস্ট্রিতে ভর্তি হন স্নাতকে। পরের বছর ১৯৭১ সালে অংশ নেন মহান মুক্তিযুদ্ধে।

স্বাধীনতার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবর্তে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে স্নাতক জীবন শুরু করেন হুমায়ুন ফরীদি। সেখানেই তার অভিনয় প্রতিভার বিকাশ ঘটে। সেলিম আল দীনের কাছে নাট্যতত্ত্বে দীক্ষা নেন তিনি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতেই সদস্যপদ পান ঢাকা থিয়েটারের। এই নাট্যদল থেকেই ছড়িয়ে পড়তে থাকে তার অভিনয়ের রঙগুলো। ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদক।

সেলিম আল দ্বীনের 'শকুন্তলা' নাটকের তক্ষক চরিত্রের মধ্য দিয়ে অভিনয়ে অভিষেক হয় তার। ১৯৮২ সালে প্রথম টেলিভিশন নাটক 'নীল নকশার সন্ধানে' নাটকে অভিনয় করেন। এরপর অভিনয় করেছেন 'ভাঙ্গনের শব্দ শুনি', 'সংশপ্তক', 'দুই ভাই', 'শীতের পাখি', 'কোথাও কেউ নেই', 'সাত আসমানের সিঁড়ি', 'একদিন হঠাৎ', 'অযাত্রা', 'পাথর সময়', 'দুই ভাই', 'শীতের পাখি', 'তিনি একজন', 'চন্দ্রগ্রস্ত', 'কাছের মানুষ', 'মোহনা', 'শৃঙ্খল', 'প্রিয়জন নিবাস'র মতো দর্শকপ্রিয় নাটকে।

বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সদস্য হিসেবে গ্রাম থিয়েটারের চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। ১৯৮২ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত 'নীল নকশার সন্ধ্যায়' ও 'দূরবীন দিয়ে দেখুন' নাটকে অভিনয় করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন তিনি। ধারাবাহিক নাটক 'সংশপ্তক'কে কানকাটা রমজান চরিত্রে অভিনয় করে নিজেকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে যান।

তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত 'হুলিয়া' চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে হুমায়ুন ফরীদির বড় পর্দায় অভিষেক ঘটে। নব্বই দশকে বাণিজ্যিক সিনেমার পরিচালক শহীদুল ইসলাম খোকনের 'সন্ত্রাস', 'দিনমজুর', 'বীরপুরুষ' ও 'লড়াকু' চলচ্চিত্রে নেতিবাচক চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। এরপরই ঢাকাই চলচ্চিত্রে খল-নায়কের চরিত্রে তিনি নন্দিত হন। এরপর অসংখ্য সিনেমায় অভিনয় করেছেন।

আশির দশকে মিনুকে বিয়ে করেছিলেন তিনি। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফাকে ভালোবেসে ঘর বেঁধেছিলেন ফরীদি। ২০০৮ সালে সেই সম্পর্কেরও বিচ্ছেদ ঘটে।

বিজনেস আওয়ার/১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে