ঢাকা, রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০, ১৫ চৈত্র ১৪২৬


'মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে ব্যাংক কর্মকর্তাদের সচেতন হতে হবে'

০৩:০৬পিএম, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : ব্যাংকিং খাতের শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে হুইসেল বোয়িং গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। সঠিক সময়ে হুইসেল বোয়িং নিশ্চিত করা গেলে ব্যাংকিং খাতের অনেক বড় বড় অনিয়ম প্রতিরোধ করা সম্ভব। তাই দেশের সুষম অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন প্রতিরোধের লক্ষ্যে ব্যাংকসমূহে নিয়োজিত কর্মকর্তাগণকে এ বিষয়ে আরও অধিক সচেতন ও সচেষ্ট হতে হবে। বললেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

সম্প্রতি হবিগঞ্জে দি প্যালেস লাক্সারি রিসোর্টে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এর উদ্যোগে এবং দ্যা এসোসিয়েশন অব এন্টি মানি লন্ডারিং কমপ্লায়েন্স অফিসার্স অব ব্যাংকস ইন বাংলাশে (এএসিওবিবি) এর সহযোগিতায় তফসিলি ব্যাংকসমূহের' প্রধান মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ পরিপালন কর্মকর্তা সম্মেলন-২০২০ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান তিনি এ কথা বলেন।

গভর্নর ফজলে কবির বলেন, উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ রূপকল্প-২০২১ এবং ২০৪১ এর বাস্তবায়নে একটি দক্ষ, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও শক্তিশালী আর্থিক খাত এবং সেবা ব্যবস্থা গড়ে তোলার মাধ্যমে শক্তিশালী অর্থনীতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আর্থিক খাতে ব্যাংকের অংশীদারিত্ব সিংহভাগ। তাই অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাংকসমূহের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছানোর জন্য ব্যাংকিং খাতে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও বিএফআইইউ এর উপপ্রধান মোঃ ইস্কান্দার মিয়ার সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের প্রধান কর্মকর্তা আবু হেনা মোহাঃ রাজী হাসান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সিলেট অফিসের নির্বাহী পরিচালক কাজী এনায়েত হোসেন। এছাড়া বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সকল তফসিলি ব্যাংকের প্রধান ও উপ প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন বিএফআইইউ এর মহাব্যবস্থাপক ও অপারেশনাল হেড মোঃ জাকির হোসেন চৌধুরী। এছাড়া অনুষ্ঠানে এএসিওবিবি'র চেয়ারম্যান সুধীর চন্দ্র দাস এবং এসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাশে এর চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন।

সম্মেলনের বিশেষ অতিথি বিএফআইইউ এর প্রধান কর্মকর্তা আবু হেনা মোহাঃ রাজী হাসান বিভিন্ন গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্যের বরাতে উল্লেখ করে বলেন, ব্যাংকিং খাতে সংঘটিত মানিলন্ডারিং এর ৮০ ভাগেরও অধিক বৈদেশিক বাণিজ্যের আড়ালে হয়ে থাকে। তাই বাণিজ্য ভিত্তিক মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে ব্যাংকসমূহকে আরও অধিক গুরুত্ব দিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ফিনটেক ও রেগটেকসহ প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সাথে সাথে মানিলন্ডারিং এর ঝুঁকিও বহুগুণে প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই এ ঝুঁকি মোকাবেলায় ব্যাংকসমুহকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণার্থে ব্যাংকিং খাতে কর্মরত কর্মকর্তাগণের সক্ষমতা বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি বিএফআইইউ এর উপপ্রধান জনাব মোঃ ইস্কান্দার মিয়া তার বক্তব্যে ব্যাংকসমূহকে সন্দেহজনক লেনদেন রিপোর্টিং এর ক্ষেত্রে আমানত কেন্দ্রিকের পাশাপাশি ঋণ ও বৈদেশিক বাণিজ্যকেও গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জানান। সম্মেলন হতে অর্জিত জ্ঞান ব্যাংকসমূহ তাদের মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ কাঠামো উন্নয়নে কাজে লাগাবেন; যাতে করে ব্যাংকিং খাত কোনোভাবেই মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়নের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হতে না পারে।

এছাড়া, তিনি পারস্পরিক সমন্বয়ের ভিত্তিতে সকল শক্তি দিয়ে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন মোকাবেলার উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়নমুক্ত একটি সুসংহত আর্থিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার আহবান জানান।

বিজনেস আওয়ার/১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/পিএস/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে