করোনাভাইরাস লাইভ আপডেট
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
৭০
৩০
সূত্র:আইইডিসিআর
বিশ্বজুড়ে
দেশ
আক্রান্ত
মৃত্যু
১৮১
১১৩১৭১৩
৬০১১৫
সূত্র: জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও অন্যান্য।

ঢাকা, শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬


প্রাণঘাতি করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩১২৫

১০:৩৭এএম, ০৩ মার্চ ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ১২৫ জন মারা গেছেন। বিশ্বের ৭৬টি দেশে ৯০ হাজার ৯২৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। অপরদিকে ৪৮ হাজার মানুষ চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে।

শুধুমাত্র চীনের মূল ভূখণ্ডেই করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ১৫১ এবং মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৯৪৩ জনের। অপরদিকে চীনের বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা দক্ষিণ কোরিয়ায় এবং সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে ইরানে।

চীনে সুস্থ হওয়ার হার বাড়লেও বিশ্বজুড়ে কমছে না প্রকোপ। হাজারো চেষ্টা করে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলেও আক্রান্ত হচ্ছেই। বিশেষ করে চীনের বাহিরে দক্ষিণ কোরিয়া, ইতালি ও ইরানে আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা।

অন্যদিকে চীনের হাসপাতালগুলোতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকা আরও তিন হাজার নাগরিককে বাড়িতে ফেরার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে রেহাই পেয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৮ হাজারেরও বেশি মানুষ।

মহামারি আকার ধারণ করা ভাইরাসটিতে চীনের বাহিরে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ঘটেছে ইসলামী প্রজাতন্ত্রের দেশ ইরানে। দেশটিতে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মারা গেলেন ৬৬ জন।

যেখানে দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতার আয়াতুল্লাহ খোমেনির একজন উপদেষ্টা ও একজন সংসদ সদস্যও রয়েছেন। আর আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে প্রায় সহস্রাধিক। যেখানে পাঁচজন সাংসদও রয়েছেন।

এদিকে ইরানের মতোই ভয়াবহ করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে ইতালিতে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ৫২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ হাজার ৩৬ জনে পৌঁছেছে।

নিহতের সংখ্যায় কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও চীনের বাহিরে আক্রান্তের হার সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ কোরিয়ায়। দেশটিতে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ২৮ জনের প্রাণ গেল।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ছয়শরও বেশি নাগরিকের দেহে করোনা সনাক্ত করেছে দেশটির চিকিৎসা বিভাগ। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮১২ জনে। করোনা ঠেকাতে দেশটির সব শহরজুড়েই প্রতিষোধক ছেটানো হচ্ছে।

জাপানি প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসে প্রাণ হারিয়েছেন ৬ জন। গত ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ওই প্রমোদতরীর যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল। যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৭০৬ জন।

প্রথমদিকে না হলেও আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে ট্রাম্পের দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ৯১ জন।

এছাড়াও, জাপানে-৬, অস্ট্রেলিয়ায়-১, হংকংয়ে-২, ফ্রান্সে-২, তাইওয়ানে-১, জার্মানিতে-২ ও ফিলিপাইনে একজন মারা গেছেন।

তবে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনা সন্ধান মিলেনি। তবে ইতালিতে এক বাংলাদেশির শরীরের গতকাল সোমবার করোনা সনাক্ত করেছে দেশটির চিকিৎসকরা। আর সিঙ্গাপুরে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে দুই বাংলাদেশি সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন।

এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসকে 'সর্বোচ্চ ঝুঁকি' হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির ঝুঁকি নির্ণয়ে এটি সর্বোচ্চ ধাপ।

অপরদিকে, করোনার ভয়বাহতায় প্রথম দিকে উৎপত্তিস্থল চীনে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিলেও সম্প্রতি করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় চরম হুমকিতে পড়েছে বিশ্ব অর্থনীতি। বিশেষ করে বাংলাদেশ ও জাপানসহ চীন নির্ভর আমদানিকারক দেশগুলো।

গত ৩১ ডিসেম্বর হুবেই প্রদেশের উহান শহরেই প্রথম এই ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এখন পর্যন্ত এটি বিশ্বের অন্তত ৫২টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। চীনের হুবেই প্রদেশের উহানের একটি সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু।

বিজনেস আওয়ার/০৩ মার্চ, ২০২০/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৯৮৮৮৪ জন
করোনায় মৃত সাড়ে ১৪ হাজার ছাড়িয়েছে

উপরে