sristymultimedia.com

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

যে কারণে লোকসানে এবি ব্যাংক

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ৩৭৮ কোটি টাকা

০১:০৪পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭

রেজোয়ান আহমেদ: শেয়ার ব্যবসায় আয় কমে যাওয়ার কারনে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত এবি ব্যাংকের ৩য় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর ২০১৭) লোকসান হয়েছে। এছাড়া প্রদত্ত ঋণের বিপরীতে সুদজনিত আয় কমে যাওয়া অন্যতম কারন। যে ব্যাংকটির শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করেছে প্রায় ৩৭৮ কোটি টাকা।

ব্যাংকটির সমন্বিত আর্থিক হিসাব থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

ব্যাংকটির শেয়ারবাজারে শেয়ার ব্যবসায় থেকে ক্যাপিটাল গেইন, লভ্যাংশ, ট্রেজারি বিলের সুদ, ট্রেজারি বন্ডে সুদ ইত্যাদিতে চলতি বছরের ৩য় প্রান্তিকে ১০৬ কোটি ৬৮ লাখ টাকা আয় হয়েছে। যার পরিমাণ আগের বছর ছিল ১৭৭ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। এ হিসাবে শেয়ার ব্যবসায়, ট্রেজারি বন্ড ও বিলে বিনিয়োগবাবদ আয় কমেছে ৭০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা বা ৪০ শতাংশ। আর এ কারণেই মূলত ব্যাংকটির ৩য় প্রান্তিকে লোকসানে হয়েছে।

এদিকে প্রদত্ত ঋণের বিপরীতে ২০১৬ সালের ৩য় প্রান্তিকে সুদজনিত আয় হয়েছিল ৪৭১ কোটি ৭১ লাখ টাকা। যা চলতি বছরের ৩য় প্রান্তিকে হয়েছে ৪০৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। যাতে সুদজনিত আয় কমেছে ৬৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা বা ১৪ শতাংশ। যা ব্যাংকটির ৩য় প্রান্তিকের লোকসানের অন্যতম কারন।

ব্যাংকটির চলতি বছরের প্রদত্ত ঋণের বিপরীতে সুদ ও বিনিয়োগজনিত আয় থেকে আমানত ও গৃহীত ঋণের বিপরীতে সুদবাবদ ব্যয় শেষে মোট পরিচালন আয় হয়েছে ২১৭ কোটি ৪ লাখ টাকা। যা পরিচালন ব্যয় শেষে নিট পরিচালন মুনাফা হয়েছে ৬৪ কোটি ২ লাখ টাকা। অপরদিকে আগের বছরের একই সময়ে মোট পরিচালন মুনাফা হয়েছিল ২৯৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা। আর পরিচালন ব্যয় শেষে নিট পরিচালন মুনাফা হয়েছিল ১৪৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

এদিকে প্রদত্ত ঋণের বিপরীতে চলতি বছরের ৩য় প্রান্তিকে ৯৯ কোটি ২০ লাখ টাকার সঞ্চিতিসহ মোট সঞ্চিতি রাখা হয় ১০০ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। যাতে করপূর্ব মুনাফার পরিবর্তে ৩৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা লোকসান হয়। আর ১৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকার কর সঞ্চিতির পরে লোকসান আরও বেড়ে দাড়ায় ৫৪ কোটি ৩১ লাখ টাকায়। তবে ডেফার্ড টেক্সজনিত ৪২ কোটি ৭৯ লাখ টাকা আয়ের কারণে নিট লোকসান কমে দাড়িয়েছে ১১ কোটি ৫২ লাখ টাকা।

এদিকে ব্যাংকটি ৩য় প্রান্তিকে লোকসান করলেও আগের ২ প্রান্তিকে মুনাফা করেছিল। যাতে ৩ প্রান্তিকের বা ৯ মাসের মোট হিসাবে ব্যাংকটি নিট মুনাফায় রয়েছে। এই ৯ মাসে নিট মুনাফা হয়েছে ৪৮ কোটি ২০ লাখ টাকা। যার পরিমাণ আগের বছরের ৯ মাসে হয়েছিল ১২৪ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

শেয়ারবাজারে বিভিন্ন কোম্পানিতে চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর এবি ব্যাংকের (সাবসিডিয়ারি ব্যাতিত) বিনিয়োগ দাড়িয়েছে ৩৭৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকায়। যা ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর ছিল ৪০৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

৬৭৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধনের এবি ব্যাংকে ২ হাজার ৪৪৭ কোটি ৩ লাখ টাকার নিট সম্পদ রয়েছে।

উল্লেখ্য রবিবার (৩ ডিসেম্বর) লেনদেন শেষে এবি ব্যাংকের শেয়ার দর দাড়িয়েছে ২৪.৪০ টাকায়।

বিজনেস আওয়ার/০৪ ডিসেম্বর, ২০১৭/আরএ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে