ঢাকা, রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬


অসদুপায় অবলম্বনের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১০

২০১৭ ডিসেম্বর ০৮ ১৮:২৩:৫২

বিজনেস আওয়ারঃ টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি ব্যবহার করে অসদুপায় অবলম্বনের অভিযোগে ছয় পরীক্ষার্থীসহ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আজ শুক্রবার পরীক্ষা চলাকালে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এই ছয় পরীক্ষার্থী এবং চক্রের চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার সিংহ জানান, বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাঁদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই চক্রের আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই চারজন হলেন নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার মহিষবের গ্রামের আফতাব উদ্দিনের ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন, কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার কাহারিয়াঘোনা গ্রামের জাফর আলমের ছেলে ইসতিয়াক আহম্মেদ, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ি উপজেলার সোনইকাজি গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান এবং মধ্যকাশিপুর গ্রামের জয়নাল আবেদিনের ছেলে মজনু রহমান।

গ্রেপ্তার পরীক্ষার্থীরা হলেন সিরাজগঞ্জের শাহাজাতপুর উপজেলার বাজারঘাটি গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে জুবায়ের আলম, একই উপজেলার মশিপুর গ্রামের আবদুল মতিনের ছেলে আবু জোবায়ের মামুন, টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কালমেঘা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে আমিনুল ইসলাম, কালিহাতী উপজেলার মালতি গ্রামের বাবলু মিয়ার ছেলে নাইবুর রহমান, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের রাশেদুল ইসলামের ছেলে রাফাত বিন রাশেদ এবং গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুরের বাবুল পালের ছেলে প্রদীপ পাল।

ওসি অশোক কুমার জানান, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কাছ থেকে নয়টি বৈদ্যুতিক যন্ত্র, নয়টি ব্যাটারি, সাতটি ইয়ারফোন এবং তার উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এই চক্রের অন্যতম হোতা আবদুল্লাহ আল মামুন পুলিশকে জানিয়েছেন, তিন থেকে চার লাখ টাকা চুক্তিতে তাঁরা বৈদ্যুতিক যন্ত্র ব্যবহার করে পরীক্ষার্থীদের বাইরে থেকে উত্তর বলে দিতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই ১০ জনের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বাদী হয়ে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিজনেস আওয়ার/রিয়াদুল ইসলাম

উপরে