বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্কঃ আইফোন ১১ এর পর অ্যাপোল বাজারে আনলো আইফোন ১১ প্রো এবং আইফোন ১১ প্রো ম্যাক্স। আইফোন ১১ যেমন ছিল সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য কিন্তু আইফোনের এই দুইটি ভার্সন বিশেষায়িত ব্যবহারকারীদের টার্গেট করে বাজারে এনেছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এর আগে বিশেষায়িত ভার্সন হিসেবে আইফোন এক্সএস এবং এক্সএস ম্যাক্স ব্যবহারকারীদের মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।আইফোনের সর্বশেষ ১১ প্রো এবং ১১ প্রো ম্যাক্স ভার্সনের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো তিনটি ক্যামেরার সংযোজন এবং এ১৩ বাইয়োনিক চিপসেট। খবর ইন্ডিয়া টুডে।

এছাড়াও এ ফোন দুইটিতে ৬৪ জিবি পর্যন্ত ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা পাওয়া যাবে। সেপ্টেম্বরের ২০ তারিখ থেকে এই প্রি অর্ডারের মাধ্যমে আগ্রহীরা এই ফোনসেটের জন্য বুকিং দিতে পারবেন। বাংলাদেশের বাজারে এই হ্যান্ডসেট দুইটির মূল্য ১ লাখ থেকে ১ লাখ ২০ হাজারের মধ্যে ওঠানামা করবে। আইফোন ১১ প্রো ও ১১ প্রো ম্যাক্স অক্টোবরের শুরুর দিকেই এই হ্যান্ডসেট দুটি বাংলাদেশের বাজারে আসবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

ভারতে আইফোন ১১ এর দাম শুরু হচ্ছে ৬৪, ৯০০ টাকা থেকে। বেস ভেরিয়েন্টে থাকছে ৬৪ জিবি স্টোরেজ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আইফোন ১১ এর দাম শুরু হচ্ছে ৬৯৯ মার্কিন ডলার (প্রায় ৫০,০০০ টাকা) থেকে। ছয়টি রঙে পাওয়া যাবে নতুন আইফোন ১১।

আইফোন ১১ প্রো ও ১১ প্রো ম্যাক্স মডেলের হ্যান্ডসেট দুটিতে যথাক্রমে থাকছে ৫.৮ ইঞ্চি ও ৬.৫ ইঞ্চি ওএলইডি ডিসপ্লে। এই প্রথম অ্যাপোল হ্যান্ডসেট দুইটির জন্য নতুন ধরনের ওএলইডি প্যানেল ব্যবহার করেছে। তারা এর নাম দিয়েছে সুপার রেটিনা এক্সডিআর ডিসপ্লে। যা ১২০০ নিটস পর্যন্ত ব্রাইটনেস তৈরি করতে সক্ষম। এবং ২০০০০০০: ১ এ রকম হারে কন্ট্রাস্ট দেখাতে পারবে।

এছাড়াও এ১৩ বাইয়োনিক চিপসেট ব্যবহার করার কারণে আগের আইফোনগুলোর তুলনায় হ্যান্ডসেট দুইটি যথাক্রমে ৪ ও ৫ ঘন্টার অতিরিক্ত ব্যাটেরি লাইফ পাবে।

আইফোন ১১ প্রো ও ১১ প্রো ম্যাক্সের পিছনে একটি বর্গাকৃতি মডিউলের ভেতর তিনটি ক্যামেরা সংযোজিত আছে। প্রত্যেকটি ক্যামেরাই ১২ মেগাপিক্সেল। এছাড়াও এতে থাকছে আল্ট্রা ওয়াইড এঙ্গেল লেন্স, ওয়াইড এঙ্গেল ক্যামেরা ও টেলিফটো ক্যামেরা।

বিজনেস আওয়ার/১১ সেপ্টেম্বর,২০১৯/ আরআই