বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে ‘বিশেষ আবেদনে’র কথা ভাবছে পরিবার। এ আবেদন তারা কার কাছে করবেন প্রশ্ন রেখেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার সকালে মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টারে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ প্রশ্ন করেন মন্ত্রী।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে যান পরিবারের সদস্যরা। সেখান থেকে বেরিয়ে বোনের মুক্তি চেয়ে বিশেষ আবেদনের কথা ভাবছেন বলে সাংবাদিকদের জানান সেলিমা ইসলাম।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘যারা বিশেষ আবেদনের কথা বলছেন, তারা আসলে আবেদন কার কাছে করবেন? আদালত, নাকি সরকারের কাছে? বেগম জিয়া কিন্তু এখন আদালতের এখতিয়ারে। তার মুক্তির বিষয়ে বিশেষ আবেদন সহমর্মিতা-সহানুভূতির বিষয় নয়, এটা লিগ্যাল ব্যাপার।’

এ ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম জিয়ার ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে সহমর্মিতা বা সহানুভূতির ঘাটতি নেই। কিন্তু এ ক্ষেত্রে সহানুভূতির কথা বলে তো আমরা আদালতকে প্রভাবিত করতে পারি না।’

দুই সিটি করপোরেশনে আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির ভূমিকা নিয়েও কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হেরে যাওয়ার আশঙ্কায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অজুহাত খুঁজছে।’

সম্প্রতি ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জেতার জন্য সরকার সবকিছু ব্যবহার করছে’- বিএনপি নেতাদের এ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা উল্টো চিত্রটাই জানি। বিএনপির নির্বাচনে হেরে যাওয়ার আশঙ্কা আছে। বিএনপি তথ্যপ্রমাণ দিক। কোথায় কোথায় সরকারের মাধ্যমে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন দেখছেন। সেটা তো প্রমাণ করতে হবে, তার প্রমাণ তারা দিক। দেশবাসী জানুক, শুধু মনগড়া কথা বললে তো হবে না। বিএনপি তো অন্ধকারে ঢিল ছোড়ে। ...আমি পার্টির সেক্রেটারি। একটা অফিসেও আমি আজ পর্যন্ত যাইনি। তাহলে কীভাবে প্রভাবিত হচ্ছে আমি জানি না।’

বিজনেস আওয়ার/২৫ জানুয়ারি, ২০২০/এ এইচ