বিনোদন ডেস্ক : যদি জিজ্ঞেস করা হয় বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়কের নাম কী? সবাই এক বাক্যে বলবেন সালমান শাহ। সে সালমান শাহের অভিষেক হয়েছিলো 'কেয়ামত থেকে কেয়ামত' ছবিতে। তার সাথে অভিষেক হয় আরেক জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমীর।

১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ ছবিটি মুক্তি পায়। আজ বুধবার (২৫ মার্চ) ছবিটি মুক্তির ২৭ বছর পূর্ণ হলো। মুক্তির এত বছর পরও এ দেশের মানুষের কাছে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ অনেক জনপ্রিয়।

সে সময়ে প্রথম দিকে হল মালিকরা নতুন নায়ক-নায়িকার ছবি বলে চালাতে চায়নি। কিন্তু পরবর্তীতে ছবিটি এক ইতিহাস সৃষ্টি করে। বয়স্ক নায়কদের ভার্সিটি পড়ূয়া ছাত্র দেখতে দেখতে ক্লান্ত দর্শকরা দারুণ পছন্দ করে তরুণ সালমান-মৌসুমি জুটিকে।

বলিউডের ছবি ‘কেয়ামত তাক কেয়ামত’র অফিশিয়াল রিমেক ছিল এটি। পরিচালনা করেছেন সোহানুর রহমান ।

প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আনন্দ মেলা তিনটি হিন্দি ছবি 'সনম বেওয়াফা', 'দিল' ও 'কেয়ামত সে কেয়ামত তক'-এর কপিরাইট নিয়ে সোহানুর রহমান সোহানকে যেকোনও একটির বাংলা রিমেক করতে বলেন।

সেই সময় উপযুক্ত নায়ক-নায়িকা পাচ্ছিলেন না বলে সম্পূর্ণ নতুন মুখ দিয়ে ছবিটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়। প্রথমে নায়িকা হিসেবে মৌসুমীকে নির্বাচিত করা হয়। নায়ক হিসেবে তৌকির আহমেদকে প্রস্তাব দিলে তিনি রিমেক চলচ্চিত্র হওয়ায় প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন।

পরে মডেল-অভিনেতা আদিল হোসেন নোবেলকে প্রস্তাব দিলে তিনিও তা ফিরিয়ে দেন। তখন নায়ক আলমগীরের সাবেক স্ত্রী খোশনুর আলমগীর 'ইমন' নামের একটি ছেলের সন্ধান দেন।

প্রথম দেখাতেই তাকে পছন্দ করে ফেলেন পরিচালক এবং 'সনম বেওয়াফা' ছবির জন্য প্রস্তাব দেন। কিন্তু যখন ইমন 'কেয়ামত সে কেয়ামত তক' ছবির কথা জানতে পারেন তখন তিনি এই ছবিতে অভিনেয়র জন্যই আগ্রহ প্রকাশ করেন।

তিনি মোট ২৬ বার ছবিটি দেখেছেন বলে পরিচালক কে জানান। শেষ পর্যন্ত পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান তাকে নিয়ে 'কেয়ামত থেকে কেয়ামত' ছবিটি নির্মাণের সিদ্ধান নেন। শেষ পর্যন্ত নায়কের 'ইমন' নাম পরিবর্তন করে সালমান শাহ রাখেন।

বিজনেস আওয়ার/২৫ মার্চ, ২০২০/এ