বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের থাবা থেকে শেয়ারবাজারকে রক্ষা করতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (বিএসইসি) ফ্লোর প্রাইস (যে দরের নিচে শেয়ার ও ইউনিট নামতে পারবে না) নির্ধারনের মতো কালজয়ী সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। ব্যাংকগুলোকে নানাভাবে বিনিয়োগে আনা হচ্ছে। কিন্তু এই পরিস্থিতির মধ্যেও বিক্রির চাপ অব্যাহত রেখেছে ব্র্যাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজ (ডিলার ও গ্রাহক)।

বুধবার (২৫ মার্চ) ব্র্যাক ইপিএল থেকে ১১ কোটি ৭৯ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট বিক্রি করা হয়েছে। এর বিপরীতে কেনা হয়েছে মাত্র ১ কোটি ৭১ লাখ টাকার। অর্থাৎ কেনার চেয়ে ১০ কোটি ৮ লাখ টাকার বা ৫৮৯ শতাংশ বেশি বিক্রি করা হয়েছে। যা বুধবার যেকোন হাউজের মধ্যে বেশি। আর এই বিক্রয় চাপ শেয়ারবাজারের উত্থানের অন্তরায় অগ্রনী ভূমিকা রেখেছে।

শেয়ারবাজারের গত ১ বছরের মন্দাবস্থায় সবচেয়ে বেশি শেয়ার ও ইউনিট বিক্রি করা হয়েছে ব্র্যাক ইপিএল থেকে। যা করোনাভাইরাসের থাবার মধ্যেও বিদ্যমান রয়েছে।

বিজনেস আওয়ার/২৬ মার্চ, ২০২০/আরএ